রাস্তার ধারে দাঁড়িয়ে সুন্দরী তরুণীর প্রাকৃতিক কর্ম নিয়ে তোলপাড়

ব্যস্ত সড়ক। সড়কের পাশে চা দোকানে দাঁড়িয়ে চা খাচ্ছেন। আপনার পাশেই দাঁড়িয়ে চা খাচ্ছিল এক পুরুষ। চা শেষ হওয়ার পর সড়কের পাশের দেয়ালের ধারে দাঁড়িয়ে প্যান্টের চেইন টেনে প্রস্রাব করতে লাগলেন। খুব অপরিচিত দৃশ্য? একদমই না। এতে চমকে ওঠার কিছু নেই। এটাই স্বাভাবিক। আমাদের দেশের মতো ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতেও এ চিত্র স্বাভাবিক। কিন্তু এমন দৃশ্য দেখেই চমকে উঠেছিল দিল্লির মানুষ। কেননা রাস্তায় প্রস্রাব করছিলেন বড় চুলের এক ‘তরুণী’। পরনে কালো গাউন। ভারতের জি নিউজ এমনই একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। ‘মেয়ে! তাও রাস্তায় এসব!’ -এমন মন্তব্য ছুড়েছে মানুষ। ভিডিওতে দেখা গেছে কালো গাউনের ওই মানুষ দেয়ালের সামনে দাঁড়িয়ে সেরে নিচ্ছে ছোট কাজ! রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় অনেক তরুণ দৃশ্যটি দেখে হাসি ঠাট্টা করেছে। বয়স্ক মানুষ আড়ালে গিয়ে আড়চোখে তাকিয়েছে। এমনকি অনেক কিশোর মুঠোফোনে দৃশ্যটি ধারণ করেছে। একপর্যায়ে এক লোক কালো গাউন পরা ব্যক্তিকে ঢিল ছুড়ে মারে। এমন সময় আড়াল থেকে দৌড়ে আসেন গোপন ক্যামেরার লোকজন। ‘ভাই ঢিল ছুড়বেন না, প্লিজ।’
‘কেন ছুড়ব না, একটা মেয়ে সবার সামনে, প্রকাশ্যে প্রস্রাব করছে। আমাদের বাড়িতে তো মা, বোন আছে নাকি?’ উত্তেজিত ব্যক্তিকে গোপন ক্যামেরার লোকজন থামালেন। জানালেন, কালো গাউনের ওই মানুষটি আসলে পুরুষ। উত্তেজিত লোকটির মুখে হাসি ফোটে। বলে, ‘ওহ! তাহলে তো সমস্যা নেই!’ এ ভিডিওর উদ্দেশ্য ছিল যত্রতত্র প্রস্রাব ত্যাগের বিরুদ্ধে প্রচার। পুরুষ মানুষ যত্রতত্র এসব কাজ করে বেড়ায়। তখন তা সমাজের গায়েই লাগে না। অথচ একটা মেয়ে যদি এসব কাজ করে তবে এত কড়া দৃষ্টি! তবে যততত্র মূত্রত্যাগের ওই আচরণটিকে কেন কুদৃষ্টিতে দেখা হয় না?

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open