কারাগার থেকে মুক্তির পর বাংলাদেশকে নিয়ে যা বললেন অনুপ চেটিয়া

উলফা নেতা অনুপ চেটিয়া কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর বাংলাদেশকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। বাংলাদেশে তাকে আশ্রয় দেয়ায় কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে অনুপ চেটিয়া বলেছেন, ‘বাংলাদেশের সব দল, সংগঠন, মানবাধিকার কর্মী, আইনজীবী এবং কারাগার কর্তৃপক্ষ আমায় এতটাই ভালোবাসা দিয়েছেন যে, কখনো মনেই হয়নি বিদেশের মাটিতে বন্দি আছি।’
অনুপ চেটিয়া বলেন, ‘বাংলাদেশের জনগন, আওয়ামী লীগ সরকার, বিএনপি সরকার, মানবাধিকার সংগঠন, সিগমা হুদা, এলিনা খান, অ্যাডভোকেট মনোয়ার হোসেন, জেল কর্তৃপক্ষ ও জেলের বন্দিদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ, তারা যেভাবে আমাকে সাহায্য-সহযোগিতা করেছে,আতিথিয়তা দিয়েছে তাতে আমার কখনো মনে হয়নি আমি বিদেশের জেলে বন্দি আছি। আমি কখনো তাদের ভূলবো না। আমি সব সময় স্বরণ রাখবো।’
অনুপ চেটিয়া ১৯৯৭ সাল থেকে বাংলাদেশের কারাগারে বন্দী ছিলেন। গত মাসেই তাঁকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হয়। অনুপ চেটিয়ার সঙ্গে তাঁর দুই সহযোগী লক্ষ্মী প্রসাদ গোস্বামী ও বাবুল শর্মাকেও হস্তান্তর করা হয়।
১৯৯৭ সালের ২১ ডিসেম্বর ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার একটি বাসা থেকে ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসামের (উলফা) অন্যতম শীর্ষ নেতা অনুপ চেটিয়াকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর তাঁর বিরুদ্ধে অবৈধভাবে বাংলাদেশে অবস্থান এবং অবৈধভাবে বিদেশি মুদ্রা ও একটি স্যাটেলাইট ফোন রাখার অভিযোগে তিনটি মামলা হয়। তিনটি মামলায় চেটিয়াকে যথাক্রমে তিন, চার ও সাত বছরের সশ্রম কারাদ- দেয় বাংলাদেশের আদালত। ওই সব মামলায় সাজা ভোগের পরও বাংলাদেশে বন্দি ছিলেন আসামের এই বিদ্রোহী নেতা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open